বমি এবং আলগা গতির কারণ এবং ঘরোয়া প্রতিকার শিশুদের জন্যে

বমি এবং আলগা গতির কারণ এবং ঘরোয়া প্রতিকার শিশুদের জন্যে

বাচ্চাদের বমি ও লুস মোশন একটি খুব সাধারন সমস্যা কারন সব সময় সব জিনিসে হাত দেয় আর হাত না ধুয়ে বার বার সেই হাত মুখে দেয়। তাছাড়া অনেক ভাইরালের কারনেও এই সমস্যা দেখা দিতে পারে। সেই ক্ষেত্রে খুব স্বাভাবিক মায়েরা চিন্তিত হয়ে পরে।তাই বাচ্চাদের বমি ও আলগা গতির কারন ও তার ঘরোয়া প্রতিকার  বলা রইল নিচে যেই গুলো খাওয়ালে আপনার বাচ্চা একটু রিলিফ পাবে।

বমি বা ভমিটিং/লুস মোশনের কারন

#1. অন্ত্রজনিত সমস্যা

বমি বা লুস মোশনের সব থেকে সাধারন একটা কারন হল অন্ত্রজনিত সমস্যা। ব্যাকটিরিয়া সংক্রমণ থেকে যেটা হয়ে থাকে। সেটা কখনো ঘরোয়া কিছু প্রতিকারের সাহায্যে বা কখনো ডাক্তারের সাহায্যে চিকিৎসা করা হয়।

#2. হজম জনিত অস্বস্তি

বমি বা লুস মোশনের অনেকটি সম্ভাব্য কারন হতে পারে এমন কিছু খাবার যা আপনার বাচ্চাটির জন্য সহজপাচ্য নয়। তাছাড়া অনেক সময় আমরাও বাচ্চাদেরকে বেশী পরিমাণে খাবার খাওয়ালে হজমে অসুবিধা হয়ে থাকে যার ফলে তারা সেটা বমি করে দেয়।

#3. খাবার থেকে অ্যালার্জি

কিছু কিছু খাবার হয়ত আপনার বাচ্চাটির সহ্য হল না যা থেকে বমি বা লুস মোশনের মধ্যে দিয়ে অ্যালার্জিক রিয়্যাকসন হতে পারে। তাই যখনই বাচ্চাকে কোন আলারগিক রেয়েকশন যেরকম বমি, রাশেস, বা আলগা গতি হচ্ছে কিনা। এর মধ্যে কোন একটা লক্ষণ দেখলে, সঙ্গে সঙ্গে নিজের ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।

#4. সংক্রমণ

যে কোন সংক্রমণ ফুসফুস, লিভার এবং অন্ত্রজনিত হলে সেটা বেশীরভাগ সময় বমি বা লুস মোশনের কারন হতে পারে। অনেক সময় (UTI) ইউরিনারি ট্র্যাক্ট ইনফেকসন ও বমির কারন হয়।

নিচে দেওয়া রইল কিছু ঘরোয়া প্রতিকার বমির এবং লুস মোশনের

#1. দারচিনি এবং মধু

দারচিনি এবং মধু বুক এবং পেটের সমস্যাজনিত যে কোন সমস্যার সমাধানে খুব কাজের জিনিস। যদি আপনার বাচ্চাটির বমি বা বমির সঙ্গে পেটের গণ্ডগোল হয় তবে এক চামচ মধুর সঙ্গে এক চিমটি দারুচিনির গুড়ো মিশিয়ে খাইয়ে দিন স্বস্তি পাবে।

মধুর সঙ্গে আদার রসও একটি অন্যতম উপকারি টোটকা। এক চামচ আদার রস মধুর সঙ্গে একটু জল মিশিয়ে খাইয়ে দিতে পারেন।

#2. আমলকি

আমলকি পেট সংক্রান্ত অনেক সমস্যার সমাধান করে। তবে এটা খাওয়া একটু কষ্টকর আপনার ছোট বাচ্চাটার পক্ষে। তাই আপনি আমলকি রসের সঙ্গে একটু মধু মিশিয়ে খাওয়াতে পারেন।

#3. করলার রস

করলা পেটে তৈরি অনেক ব্যাকটিরিয়া মেরে দেয় যা থেকে পেটের সমস্যার তৈরি হয়। আপনি করলার রসের সঙ্গে মধু মিশিয়ে খুব সহজেই আপনার বাচ্চাটিকে খাওয়াতে পারেন।

#4. কিশমিশ এবং বেদানার বীজ

বেদানার বীজ গুঁড়ো করে টার সঙ্গে কিশমিশ মিশিয়ে খাওয়ালে আপনার বাচ্চাটি পেটের সমস্যা থেকে খুব তাড়াতাড়ি উপকার পাবে। এই গুড়োটি আপনি জলের সঙ্গে মিশিয়েও খাওয়াতে পারেন।

#5. জাইফল

জাইফল বমি থেকে স্বস্তি দেওয়ার খুব শক্তিশালী একটি উপাদান। এক চা-চামচ জাইফল এক কাপ জলে ফুটিয়ে সেটাকে উষ্ণ গরম থাকা অবস্থায় খাইয়ে দিন।  

#6. সাবুর জল

সাবুদানার জল আপনি খুব সহজেই বানিয়ে দিতে পারেন। হাফ কাপ সাবুদানা ভিজিয়ে রাখুন এক ঘণ্টা তারপর সেটাকে এমনভাবে ফোটাবেন যেন সেটা খুব ঘন না হয়। দানাগুলো গলে গেলে জলটাকে ছেকে নিন। বমি বা লুস মোশনের জন্য জলের ঘটতি মেটানোর খুব উপকারী এবং প্রবণতাও কমিয়ে দেয়।

#7. ও.আর.এস. 

সবথেকে সহজলভ্য এবং পুরোন ঘরোয়া প্রতিকার। আপনি ও.আর.এস. ঘরে বানিয়ে নিতে পারেন খুব তাড়াতাড়ি

  • ছয় চামচ চিনি
  • ১/২ চামচ নুন
  • ১ লিটার জলে মিশিয়ে সেটাকে আপনারা বাচ্চাটিকে খাওয়ান।

এছাড়াও টক দই, চালের জল, ডালের জল, নারকেলের জল, গাজরের রস দ্রুত উপশম দেয় বমি বা লুস মোশন থেকে।

সবশেষে কিছু গুরুত্বপূর্ণ জিনিস সবসময় খেয়াল রাখবেন-

  • পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা এক ও অদ্বিতীয় আপনার বাচ্চাটিকে সুস্থ রাখার জন্য।
  • বাচ্চার সব খেলনা, টিথারস গুলো যেন রুটিন করে পরিষ্কার করা হয়।
  • লিকুইড বেশী দিন। খাবারের জন্য জোর করবেন না বরং তাঁকে ছোট ছোট পরিমাণে খাবার দিন।
  • দুগ্ধজাতীয় জিনিস- ঘি,মাখন, চিজ একটু বন্ধ রাখুন।
  • ফলের রস বন্ধ রাখবেন।
  • যথেষ্ট পরিমাণে বিশ্রাম দেবেন আপনার শিশুকে।
  • ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কোন রকম অ্যান্টিবায়োটিক দেবেন না।

একজন মা হয়ে অন্য মায়েদের সঙ্গে নিজের অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিতে চান? মায়েদের কমিউনিটিতে একজন অংশীদার  হয়ে যান। এখানে কিল্ক করুন, আমরা আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করবো।

null

null