নতুন মায়ের কী কী চাই

নতুন মায়ের কী কী চাই

প্রথমেই অনেক অনেক অভিনন্দন সেই সব মায়েদের, যাঁরা বাড়ির নতুন অতিথির অপেক্ষায় দিন গুনছেন। তাই সবচেয়ে বেশি দরকার এই পুরো অভিজ্ঞতার আনন্দটাকে চেটেপুটে উপভোগ করা। বাড়ির অভিজ্ঞ যাঁরা আছেন, তাঁরা যতটা পারেন তাঁদের অভিজ্ঞতা আপনাকে বলে সাহায্য করার চেষ্টা করেন। যেমন, কী কী খাবেন, কখন খাবেন, কতটা খাবেন, একদম চিন্তা না করা, ভালো ভালো সব কাজ করা যা আপনাকে আনন্দে রাখবে।

আপনার এই সময়ের আনন্দে যেন কোনও রকম চিন্তার রেখা দাগ না কাটে তার জন্য আমরাও কিছুটা চেষ্টা করলাম। কী কী জিনিস আপনার দরকার, সেগুলো একটু খেয়াল করে ম্যানেজ করলেই কেল্লাফতে।

নতুন মায়ের কী কী চাই (Requirements of a new mom)

#1. অরগ্য়ানাইজার (Organiser)

নতুন যাঁরা মা হতে চলেছেন, ভুলে যাওয়াটা তাঁদের কাছে খুবই সাধারণ একটা ব্যাপার। কিন্তু আপনার অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ থাকে, যেগুলো ভুলে গেলেই কেলেঙ্কারি। যেমন, ওষুধ খাওয়া, ডাক্তারের কাছে চেক আপ ইত্যাদি। একটা অরগ্য়ানাইজার নিজের কাছে রাখুন। যার সাহায্যে আপনি কাজগুলো মনে করে খুব সহজে করে ফেলতে পারবেন।   

#2. হসপিটাল ব্যাগ (Hospital Bag)

ডেলিভারি ডেট এগিয়ে আসার সাথে সাথে যে কোনও জরুরি অবস্থার জন্য়ে তৈরি হয়ে থাকা দরকার। তাই একটা হসপিটাল ব্যাগ (ব্য়াগে যা যা রাখবেন- নার্সিং ব্রা, ডিসপোজাল আন্ডারওয়্যার, স্যানিটারি প্যাডস, ফাস্ট এডস বক্স, নতুন বাচ্চার তোয়ালে, জামা, মোজা, টুপি, ব্যথার ওষুধ ইত্যাদি) সবসময় কাছে কাছে রাখুন।

#3.ব্রেস্ট পাম্প (Breast Pump)

অধিকাংশ নবজাতক বাচ্চারই একটা সমস্য়া হয়, যে সে ঠিক করে ব্রেস্ট সাক করে উঠতে পারে না। ফলে মায়েরা কী করবেন বুঝে উঠতে না পেরে বাইরের খাবারের ওপর নির্ভর করতে শুরু করেন। যেটা একেবারেই কাম্য নয়। ব্রেস্ট পাম্পের সাহায্যে আপনি প্রথম কিছুদিন এই সমস্যা থেকে রেহাই পেতে পারেন খুব সহজে।     

#4.  নিপিল শিল্ড (Nipple Shield)

অনেক সময় আপনার শিশু ঠিক করে আপনার স্তনের সাথে ল্যাচ করে উঠতে পারে না। সেই ক্ষেত্রে সঙ্গে একটা স্টেরিলাইজড নিপিল শিল্ড রাখা সবসময় ভালো। নতুন মা হওয়ার একটা ধকল তো থাকেই। কিন্তু তার সঙ্গে যদি শিশু আপনার দুধ না খেতে পারে বা ঠিক ভাবে ল্যাচ না করতে পারে, তাতে চিন্তাটা আরও বেড়ে যায়। নিপিল শিল্ড এর সাথে শিশু সহজেই ল্যাচ করে আপনার দুধ খেতে পারবে।  

#5. ব্রেসটফিডিং পিলো (Breast Feeding Pillow)

ব্রেস্টফিডিং-এর কাজটা খুবই শক্ত। যখন কোনও মা ঠায় বসে তার বাচ্চাকে ফিডিং করায়, তখন তার কাঁধে খুবই চাপ পড়ে। ব্রেস্টফিডিং পিলো আপনাকে সঠিক ফিডিং করানোর অভিজ্ঞতা দেবে।এই পিলো আপনাকে এবং আপনার শিশুকে- দু’জনকেই এক আরামদায়ক অনুভূতি দেবে।

#6. বডি বাটার ক্রিম (Body Butter Cream)

প্রেগন্য়ান্সির সময় আর পরে আপনার ত্বক কুঁচকে যায় আবার বেড়েও যায়। যার কারণ হিসেবে ত্বক রুক্ষ হয়ে যায় আর একটা অস্বস্তিও হয়। বডি বাটার ক্রিম আপনাকে মসৃণতা দেবে, সঙ্গে রুক্ষভাব থেকে স্বস্তিও দেবে।   

#7.  রকিং চেয়ার / দোলনা চেয়ার (Baby Rocker)

আপনার ছোট শিশুটিকে ঘুম পাড়ানো খুব সহজ কাজ নয়। এই চেয়ারটা আপনার শিশুর বেবি সিটার এবং দোলনা দুটোর কাজই করবে যা শিশুটিকে ঘুমোতে সাহায্য করে এবং মাও থাকবে নিশ্চিন্ত।

#8. বেবি বটল স্টেরিলাইজার (Baby Steriliser)

ফিডার স্টেরিলাইজার অত্য়ন্ত আবশ্যক এবং গুরুত্বপূর্ণ  একটি জিনিস, যেটা আপনার বাড়িতে রাখতেই হবে, এবং আপনার শিশুটি পেটের রোগ থেকে থাকবে অনেক দূরে। এই জিনিসটি যেমন আপনার সময় বাঁচাবে তেমনই ব্যবহারেও সহজ। এটা একসাথে ছ’টি বোতল স্টেরিলাইজ করতে পারে। স্টেরিলাইজেশন ৯৯.৯% ক্ষতিকারক জীবাণু মারতে সক্ষম এবং সংক্রমণ প্রতিরোধকও।

#9. ডাইপার ব্যাগ ( Diaper Bag)

সত্যি বলতে মায়েদের অনেক জিনিস সঙ্গে নিয়ে বেরোতে হয়। ডাইপার ব্যাগে অনেকগুলো পকেট থাকে যেমন প্লাস্টিক পাউচ, চেঞ্জিং ম্যাট। মায়েরা তাই ছোটখাটো ট্যুরে বা কোথাও আউটিংয়ে গেলে ডাইপার ব্যাগ রাখতেই পারেন। আরও কিছু অত্যাবশ্যক দরকারি জিনিস লাগে যেমন- ডাইপার / ক্লিনজিং ওয়াইপ / হ্যান্ড স্যানিসাইজার / ফরমুলা বটল / প্য়াসিফায়ার / জামাকাপড় / খাবার (মায়েদের জন্য)।

# 10. সহানুভূতি ও সাহায্য (Empathy and help)

নতুন মায়েদের অন্য়তম চাহিদা হল সহানুভূতি আর সাহায্য়, যেটা তাঁরা তাঁদের পরিবারের থেকে পেয়ে থাকেন। নতুন একটা চ্যালেঞ্জ যা মায়েদের জীবনশৈলী বদলে দেয় ফলে তাঁরা খুব সহজেই ভয় পেয়ে যান। তাই বাড়ির প্রত্য়েক সদস্য়কেই সহানুভূতিপ্রবণ হয়ে উঠতে হবে, আর সাহায্য়ের হাত বাড়িয়ে দিতে হবে, যে কোনও সময়ে।

# 11. বিশ্রাম (Rest)

প্রেগন্যান্সি থেকে ডেলিভারি এবং পোস্ট ডেলিভারি পুরো পথটা খুব সহজ নয়। ক্লান্তি, হতাশা, চিন্তা, ব্যথা সবটাই পেরোতে হয়। তাই বিশ্রাম ঠিক মতো নেওয়াটা খুব জরুরি। তবে খেয়াল রাখতে হবে বিশ্রামটা শারীরিক ও মানসিক দুটো দিক থেকেই যেন মায়েরা পায়। নতুন শিশুর চাহিদা মতো মাকে জেগে থাকতেই হবে, তবে ফাঁকে ফাঁকে যাতে সে পর্যাপ্ত বিশ্রামও পায়, সেটা দেখার দায়িত্ব পরিবারের।   

ছোট করে বলতে গেলে, নতুন মায়েরা তাদের ছোট্ট শিশুটিকে নিয়ে এক রোমাঞ্চকর সময় দিয়ে যায়। যে জিনিসগুলো নিয়ে আমরা আলোচনা করলাম, সেগুলোই এই চড়াই-উতরাইয়ের পথটাকে মজাদার আর মসৃণ করে তোলে।

একজন মা হয়ে অন্য মায়েদের সঙ্গে নিজের অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিতে চান? মায়েদের কমিউনিটিতে একজন অংশীদার  হয়ে যান। এখানে কিল্ক করুন, আমরা আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করবো।

null

null