ব্রেস্টফিডিং - কিছু মিথ এবং সত্যি

ব্রেস্টফিডিং - কিছু মিথ এবং সত্যি

ব্রেস্টফিডিং বা স্তন্য়পানের এক অনবদ্য প্রভাব আছে সদ্য় মা ও তাদের বাচ্চাদের জন্য়। মায়ের বুকের দুধই আপনার ছোট্ট সোনার প্রথম কয়েক মাসের জন্য় অতি গুরুত্বপূর্ণ সুষম এক খাবারI

বিশ্ব স্বাস্থ্য় সংস্থা (WHO) এবং ইউনিসেফ (UNICEF) বাচ্চার জন্মের প্রথম ঘণ্টার মধ্য়েই স্তন্য়পান শুরু করার উপর জোর দেয়। এবং তারা বলে, যদি কোনও মা তার সন্তানকে কমপক্ষে প্রথম ছয় মাস শুধুমাত্র স্তন্য়পানই করাতে পারে, তা হলে এর চেয়ে ভালো কিছু হতেই পারে না।

এর পরেও আপনি ব্রেস্টফিডিং করাতে পারেন, ২ বছর পর্যন্ত। যদিও এর গুরুত্ব অপরিসীম তবুও  তাতে শুরুতে দেখা গিয়েছে যে মাত্র ৩৯% বাচ্চা প্রথম ছয় মাসেরও কম সময় মায়ের বুকের দুধ পায়। এর অনেকগুলো কারণের মধ্যে একটি হল মায়েদের সঠিক ধারণার অভাব।

মায়েরা যাতে সহজেই সেই ভুল ধারণাগুলো থেকে বেরিয়ে আসতে পারে এবং নিজের বাচ্চাকে অন্তত ৬ মাস বুকের দুধ খাওয়াতে পারে, সেই কারণেই নীচের ধারণাগুলোর ওপর আলোকপাত করা হয়েছে। এইগুলো পড়লেই বোঝা যাবে ভুল ধারণাগুলো কী এবং সত্যিটা কী!

ব্রেস্টফিডিং- মিথ ও সত্য়ি  (Myths and truths of breastfeeding)

#1. ধারণা- ১, ব্রেস্টফিডিং-এর ব্যথা  (pain during feeding)

সত্য়ি– ব্রেস্টফিডিং কখনই বেদনাদায়ক পদ্ধতি নয়। আপনার শিশুটি ঠিকমতো ল্যাচিং করে সাক করলে পুরো ব্যাপারটাই পেইনলেস হয়। তবুও যদি ব্যথা অনুভব হয় একবার আপনার ল্যাকটেশন এক্সপার্ট-এর সঙ্গে কথা বলুন। মনে রাখবেন, আপনি একা নন, আপনাকে সাহায্যের জন্য অনেকেই আছে আপনার পাশে।

#2. ধারণা- ২, দুধ কম হয় তাই বাচ্চার পেট ভরে না  (Your inadequate milk supply leaves your baby hungry)

সত্য়ি– শুধুমাত্র আপনার বাচ্চাটি কাঁদছে বলেই তার খিদে পাচ্ছে এমন নয়। বেশিরভাগ মা বুঝতেই পারে না তাদের বাচ্চাটি আসলে কী চাইছে। অনেক সময় বাচ্চাটি মায়ের স্পর্শ চায় আরামের জন্য অথবা শুধুমাত্র মায়ের কাছেই থাকতে চায়। হয়তো সে জন্য়ই সে কাঁদতে থাকে, আর আপনি ভাবেন ওর খিদে পাচ্ছে!

#3. ধারণা- ৩, প্রত্যেক ফিডিং সেশনে দুটো ব্রেস্টেরই ব্যবহার (You have to use both breasts at every feed)

সত্য়ি- আপনার বাচ্চাটিকে এক একটি সেশনে একটি ব্রেস্টের ওপরই বেশি সময় নিতে দিন, তা হলে বাচ্চাটি মায়ের হাইন্ড মিল্ক নিতে পারে যেটা কি না অনেক বেশি পুষ্টিকর ফোরমিল্ক-এর থেকে। ব্রেস্ট ফিডিং-এর সময় দুটো ব্রেস্টেরই ব্যবহার করলে বাচ্চাটি শুধুমাত্র স্বল্প-ক্যালোরি যুক্ত দুধটুকুই পাবে। আপনার শিশুটিকে পুরোপুরি ভাবে সাক করতে দিন, যতক্ষণ না সে তৃপ্ত হচ্ছে।

#4. ধারণা- ৪, ফ্লো নেই তাই খাওয়াই না (Insufficient flow that’s why I don’t feed)

সত্য়ি- আপনার ছোট শিশুটিকে সাক করতে দিন তা হলেই ফ্লো আসবে। সাকিং এর ফলে আপনার ব্রেস্টের ভাল্বের মুখগুলো খুলে যায় ফলে ফ্লো নিজে থেকেই বেরে যায়।  

#5. ধারণা- ৫, কাজে যাব, তাই ব্রেস্ট ফিডিং ছাড়িয়ে দিয়েছি (Working so have to stop feeding)

সত্য়ি– মাতৃত্বকালীন ছুটির শেষে কাজে যোগ দেওয়ার আগে মায়েরা বুকের দুধের কিছু পরিবর্ত খুঁজতে থাকেন। এর জন্য় সবচেয়ে সহজলভ্য় হল ফরমুলা মিল্ক। কিন্তু জেনে রাখা দরকার, বুকের দুধের চেয়ে এর পুষ্টিগুণ অনেকটাই কম।

আপনার বাচ্চাটিকে ব্রেস্ট মিল্কের থেকে বঞ্চিত কারার কোনও কারণই নেই। শুধু একটা ব্রেস্টপাম্প মেশিন লাগবে যেটার সাহায্যে আপনি আপনার বাচ্চার জন্য ব্রেস্ট মিল্ক স্টোর করে অনায়াসেই কাজে যেতে পারেন। বুকের দুধ ফ্রিজে স্টোর করে রাখলে দু’দিন পর্যন্ত ব্যবহার করা যায়।

#6. ধারণা- ৬, ব্রেস্ট স্যাগি হয়ে যাবে যদি ব্রেস্টফিড করাই (My breasts will sag, so I dont feed)

সত্য়ি- প্রেগন্যান্সির সময় অনেকটাই বডি ফ্যাট জমে, কেন না কোনও রকম দৈহিক পরিশ্রম হয় না এই সময়। ব্রেস্টফিডিং প্রেগন্যান্সির পর শরীরের মেদ কমাতে সাহায্য করে I তাই চেহারা নিয়ে সচেতন মায়েরা একটু ভেবে দেখবেন।

আপনি কি জানেন:

বিশ্ব স্বাস্থ্য় সংস্থা (হু)-র তথ্য অনুসারে, ব্রেস্টফিডিং করা শিশুরা জন্মের প্রথম ছয়মাস অনেক বেশি সুস্থ থাকে। ব্রেস্টফিডিং-এর আরও একটি গুণ আছে, যা অনেকেরই অজানা। স্তন্য়পানের মাধ্য়মেই শ্বাসনালীর সংক্রমণ ও ডায়রিয়া থেকে বাচ্চার মৃত্যুর হার কম হয়I এ কথা প্রমাণিত।

একজন মা হয়ে অন্য মায়েদের সঙ্গে নিজের অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিতে চান? মায়েদের কমিউনিটিতে একজন অংশীদার  হয়ে যান। এখানে কিল্ক করুন, আমরা আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করবো।

null

null