বাচ্চাকে কথা বলানোর ছ’টি উপায়

বাচ্চাকে কথা বলানোর ছ’টি উপায়

এত করে বলি, তবু কথা কও না কেন গো? বাচ্চার আদো আদো কথা শোনবার জন্য় অস্থির হয়ে উঠছেন, তাই তো? কচি গলার কলকলানি শুনতে কার না ভালো লাগে! সাধারণত, শিশুরা ১২-১৮ মাস বয়সের মধ্যেই প্রথম কথা বলে। ছোট্ট সোনাটি কবে আপনাকে ‘মা’ বলে ডাকবে, তারই অপেক্ষায় হয়তো দিন গুণছেন আপনিও। জানেন কি, শিশুকে তাড়াতাড়ি কথা বলা শেখাতে একজন মা-ই সাহায্য করতে পারে? How to help a child speak in Bangla. 

বাচ্চাকে কথা বলানোর ছ’টি উপায়

#1. প্রচুর কথা বলুন (Talk a lot with your baby)
যখনই সময় পাবেন, বাচ্চার সাথে কথা বলুন। বাচ্চা কিছু বলার চেষ্টা করলে বা গলা দিয়ে অন্যরকম আওয়াজ করলে, আপনিও তার মতো করে আওয়াজ করে কিছু বলার চেষ্টা করুন। এতে বাচ্চা মায়ের সাথে আরও কথা বলার চেষ্টা করতে থাকে এবং অনেক শব্দ বুঝতে শেখে। How to help a child speak in Bangla

বাচ্চাকে কথা বলানোর ছ’টি উপায়

#2. গান করুন, ছড়া শোনান, ছবি দেখান (spend time together)
দেখা যায়, বাচ্চারা গান শুনতে, ছন্দ মেলানো ছড়া শুনতে বা রঙিন ছবি দেখতে খুব ভালোবাসে। টিভি বা কম্পিউটারের ওপর নির্ভরশীল না হয়ে, নিজের গলায় বাচ্চাকে গান গেয়ে শোনান। ছড়া বলতে বলতে নানারকম অঙ্গভঙ্গি করুন। এতে বাচ্চা মজা পেয়ে আপনার দিকেই তাকিয়ে থাকবে এবং ছড়ার শব্দগুলো বোঝার চেষ্টা করবে।

বাচ্চাকে কথা বলানোর ছ’টি উপায়

#3. খেলা করুন (Play with your baby)
জানেন কি, আপনার একরত্তির সবথেকে প্রিয় খেলার সাথী কিন্তু আপনিই। সময় পেলেই বাচ্চাকে নিয়ে খেলুন। খেলতে খেলতে বাচ্চা অনুরোধ বা আবদারের ভাষাও শিখে যায়। যেমন, আপনি যদি বাচ্চার প্রিয় পুতুলটি নিতে চেয়ে তাকে বলেন, “তুমি আমাকে পুতুলটা নিয়ে একটু খেলতে দেবে?”; বাচ্চা বোঝে যে আপনি তার কাছে কিছু চাইছেন। খেলার সময় মুখে আওয়াজ করুন। বাচ্চার যে খেলনা সবথেকে প্রিয়, সেটা মাঝে মাঝে ওর নাগালের বাইরে রেখে দিন। বাচ্চা ঈশারা করে চাইলে, তাকে বারবার বলুন, “তুমি ওই খেলনাটা নেবে?” এছাড়াও বাচ্চা যে খাবার খেতে খুব ভালোবাসে, সেটা ওকে অল্প খেতে দিন, যাতে ও আপনার কাছে আরও চাইবার চেষ্টা করে।

বাচ্চাকে কথা বলানোর ছ’টি উপায়

#4. ভুল উচ্চারণ করলে কখনও বকবেন না (Never criticize baby’s pronunciation)
কখনও বাচ্চাকে কথা বলার জন্য চাপ দেবেন না বা ভুল উচ্চারণ করতে থাকলে তাকে বকবেন না। এতে বাচ্চার মনে ভীতি তৈরি হয় এবং বাচ্চা কিছু বলতে চায় না। আবার, বাচ্চা ভুল উচ্চারণ করলে সেটা প্রশ্রয়ও দেবেন না। আধো–আধো বুলিতে ভুল উচ্চারণ খুব ভালো লাগলেও, বড় হওয়ার পর কিন্তু একেবারেই লাগে না। শিশুর সামনে বারবার পরিষ্কার উচ্চারণে কথা বলুন।

বাচ্চাকে কথা বলানোর ছ’টি উপায়

#5. কী চাইছে বোঝার চেষ্টা করুন( Follow your baby’s wish)
বাচ্চা কী চায়, সেটা বোঝার চেষ্টা করুন। বাচ্চা যেটা করতে ভালোবাসে, তার মাধ্যমেই যত বেশি সম্ভব কথা বলার চেষ্টা করুন। যদি আপনার বাচ্চা পুতুল নিয়ে খেলতে ভালোবাসে, তা হলে তাকে পুতুল নিয়েই নানারকম গল্প বলুন। পুতুলের বিভিন্ন অঙ্গ এবং পুতুলখেলার আনুসাঙ্গিক সমস্ত বিষয় শিশুকে চেনাতে থাকুন এবং শিশুকে বারবার প্রশ্ন করে তার মতামত নেওয়ার চেষ্টা করুন।

বাচ্চাকে কথা বলানোর ছ’টি উপায়

#6.বাইরে ঘোরাতে নিয়ে যান (Plan for on field trips with your little one)
প্রত্যেকদিন বিকেলে বাচ্চাকে একটু করে ঘুরতে নিয়ে যান। আপনি, বাচ্চার বাবা বা বাড়ির যে কেউ এই কাজটা করতে পারেন। বাইরে বেরিয়ে শিশু অনেক কিছু নতুন দেখে এবং তার প্রতি আগ্রহী হয়ে ওঠে। সবকিছু তাকে চিনিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করুন। মাঝে মাঝে সপ্তাহান্তে ঘুরে আসুন চিড়িয়াখানা, অ্যাকোয়ারিয়াম বা বাচ্চাদের মিউজিয়ামে। এইসব জায়গায় হেঁটে-চলে বেড়ানো বা সাঁতার কাটা নানারকম জীবজন্তু বা উড়ে বেড়ানো পাখিদের দেখে শিশুরা একটা অন্য জগতের সন্ধান পায় এবং নিজের আবেগ-উত্তেজনা প্রকাশ করার চেষ্টা করে।