১০ ঘরোয়া টোটকা; আকর্ষণীয় উজ্জ্বল ত্বকের গোপন রহস্য

১০ ঘরোয়া টোটকা; আকর্ষণীয় উজ্জ্বল ত্বকের গোপন রহস্য

সুন্দর, দাগহীন ও উজ্জ্বল ত্বক কে না চায় বলুন তো? টানটান পরিষ্কার ত্বকই যেন মুখের সাথে সাথে মনের বয়সটাও অনেকটা কমিয়ে দেয়। সংসার, কর্মক্ষেত্র আর কর্তব্যের জাঁতাকলে সারাদিন পিষ্ট হয়ে রাতে শুতে যাওয়ার আগে যখন আয়নায় নিজের ক্লান্ত মুখটা দেখেন, কেমন লাগে বলুন তো? আবার আপনার বাড়িতে যদি একটি ছোট্ট একরত্তি আছে, তা হলে তো রাতের ঘুমও মাটি প্রায়দিনই।

দিনের পর দিন অযত্নের ফলে মুখের লাবণ্য যেন কোথায় হারিয়ে যায়, চোখের কোণে গামলা গামলা কালি জমে, অকালেই উঁকি দেয় বলিরেখা বা নরম গালে রাজত্ব করে ব্রণের দল। আয়না দেখতে গিয়ে মনটাই তো খারাপ হয়ে যায় আমাদের! (Home Remedies for Glowing Skin in Bangla or Ujjwal twok pan ghoroa upay)

 

নিখুঁত সুন্দর ও উজ্জ্বল ত্বক পাওয়ার ঘরোয়া উপায় (Effective Home Remedies For Glowing Skin in Bangla)

এবার আসি আসল কথায়। নিজের জন্য সময় নিজে বের করতে না পারলে কিন্তু আখেরে ক্ষতি আপনার। জানি, আপনি দম ফেলার সময় পান না, তাই কম সময়ে কী করে নিজের ত্বকের যত্ন নিতে হয় সেটাই বলবো আজ। আপনি শুধু কথা দিন, রোজ যেমন খাবার খান বা নিত্যনৈমিত্তিক কাজগুলো করেন, ঠিক সেরকমই নিজের রূপচর্চায় সারাদিনে মাত্র ১৫ মিনিট দেবেন।

ঠিক শুনেছেন, যে টোটকাগুলো বলবো, সেগুলো মাত্র ১৫ মিনিট করে ১ মাস নিয়মিত করুন, তফা বুঝবেন নিজেই। আর আশপাশ থেকে প্রশংসা পাবেন ঝুড়ি-ঝুড়ি। কোনও দামী প্রসাধনী নয় বা বিজ্ঞাপনী চটকের প্রতিশ্রুতি নয়, এসব রূপচর্চার সামগ্রীর জোগান দেবে আপনার অতি সাধের রান্নাঘরটি। এই টোটকাগুলির উপকরণ সবসময় আপনার হাতের কাছেই পাবেন আর বানানোও ভারি সোজা। জেনে নিয়ে আজ থেকেই শুরু করুন।

 

#1. চাল গুঁড়ো আর টক দইয়ের ফেস প্যাক ও স্ক্রাব (Rice flour and curd face pack)-> এই প্যাকটি ফেস প্যাক হিসেবেও কাজ করে আবার স্ক্রাব হিসেবেও অনবদ্য। চাল গুঁড়ো ও দই খুব ভালো এক্সফোলিয়েটর বা স্ক্রাবার হিসেবে কাজ করে। এই প্যাক ব্যবহারে মুখের সব মরা কোষ ও চামড়া উঠে যায় ও ত্বক ভিতর থেকে পরিষ্কার হয়। ত্বক খুব নরম হয় এবং রোদে পোড়া ভাবও চলে যায়।

কী কী লাগবে?(Ingredients)->

  • চাল গুঁড়ো
  • পাতিলেবুর রস
  • টক দই

 

কীভাবে বানাবেন প্যাক? (How will you make this pack?)

    • চাল গুঁড়ো আর টক দই পরিমাণ মতো নিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন।
    • মিশ্রণে ৫-৬ ফোঁটা পাতিলেবুর রস দিন ও মিশিয়ে নিন।
    • মুখে ও গলায় পুরো প্যাকটি ভালো করে লাগান।
    • ১৫-২০ মিনিট পরে হাল্কা হাতে স্ক্রাব করুন এবং ভালো করে জল দিয়ে ধুয়ে নিন।

 

কত বার লাগাবেন? (How often you should apply?)

সপ্তাহে দুইবার এই প্যাকটি লাগাতে পারেন।

 

#2. বেসন, হলুদ, আমন্ড ও গুঁড়ো দুধের ফেস প্যাক (Gram flour, almond and milk powder face pack)-> কোথাও অনুষ্ঠানে যাওয়ার আগে বা তক্ষণা মুখ তরতাজা উজ্জ্বল করতে চাইলে এই প্যাকটির জুড়ি নেই। যাদের ত্বক শুষ্ক, তাদের জন্য দারুণ এই প্যাকটি। যাদের ত্বক খুব অয়েলি তারা গুঁড়ো দুধের পরিবর্তে দই ব্যবহার করুন এবং আমন্ড-এর বদলে টম্যাটোর রস।

কী কী লাগবে? (Ingredients)->

    • বেসন
    • কাঁচা হলুদ
    • ৬-৭ টি ছাল ছাড়ানো আমন্ড
    • গুঁড়ো দুধ

 

কীভাবে বানাবেন প্যাক? (How will you make this pack?)

    • বাদামগুলো মিহি করে বেটে নিন।
    • কাঁচা হলুদ বেটে এক চা-চামচ মতো রস বের করে নিন।
    • বেসন, বাদাম বাটা, কাঁচা হলুদের রস ও গুঁড়ো দুধ পরিমাণ মতো ভালো করে মিশিয়ে নিন।
    • মুখে ও গলায় পুরো প্যাকটি ভালো করে লাগান।
    • ১৫-২০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন।

 

কত বার লাগাবেন? (How often you should apply?)

সপ্তাহে ৩বার এই প্যাকটি লাগাতে পারেন।

 

#3.  আলু ও মধুর ফেস প্যাক (Potato and honey face pack)-> আলু প্রাকৃতিক ব্লিচিং এজেন্ট হিসেবে কাজ করে বলে ত্বকের রং উজ্জ্বল করে ও ট্যান কমাতে খুব সাহায্য করে। মধু ত্বকের আর্দ্রতা ঠিক রেখে ত্বক মসৃণ ও পেলব করে। যাদের মুখে ব্রণর দাগ হয়ে গেছে, সেই দাগ কমাতেও এই প্যাক দারুণ কাজ করে।

কী কী লাগবে? (Ingredients)->

    • আধটা আলু গ্রেট করা
    • মধু এক চা-চামচ
    • গোলাপ জল

 

কীভাবে বানাবেন প্যাক? (How will you make this pack?)

    • গ্রেট করা আলুর সাথে মধু ও কয়েক ফোঁটা গোলাপ জল মিশিয়ে নিন।
    • মুখে ও গলায় পুরো প্যাকটি ভালো করে লাগান।
    • ২০ মিনিট পরে ধুয়ে ফেলুন।

 

কত বার লাগাবেন? (How often you should apply?)

একদিন ছাড়া ছাড়া এই প্যাক লাগাতে পারেন।

 

আরও পড়ুন:  গোড়াতেই নির্মূল করা সম্ভব স্তন ক্যান্সার!

 

#4. ফ্রুট ফেস প্যাক (Fruit face pack)-> আমরা তো নিয়মিত সবাই কিছু না কিছু ফল খাই। খাবার আগে ১-২ টুকরো করে ফল সরিয়ে রাখুন মুখের খাবার হিসেবে। এসব ফলে থাকা শক্তিশালী অ্য়ান্টিঅক্সিডেনটস (antioxidants) ও এনজাইমস মুখের মরা কোষ দূর করে ও ত্বক ফর্সা করে।ত্বক আবার সজীব হয়ে ওঠে।বলিরেখা আসার সম্ভাবনাও কমে।

কী কী লাগবে? (Ingredients)->

  • আপেল
  • পাকা পেঁপে
  • কলা
  • মধু
  • পাতিলেবুর রস

 

কীভাবে বানাবেন প্যাক? (How will you make this pack?)

    • প্রত্যেকটা ফল সমান পরিমাণে নিয়ে আপনার প্রয়োজন মতো কেটে নিন।
    • ব্লেন্ডারে মিহি পেস্ট বানিয়ে নিন।
    • ৩-৪ ফোঁটা পাতিলেবুর রস ও এক চা চামচ মধু ভালো করে মিশিয়ে নিন।
    • মুখে ও গলায় পুরো প্যাকটি ভালো করে লাগান।
    • ২০ মিনিট পরে ধুয়ে ফেলুন।

 

কত বার লাগাবেন? (How often you should apply?)

সপ্তাহে একবার লাগালেই হবে।

 

#5. মুলতানি মাটি ও চন্দন ফেস প্যাক (Multani mitti and sandal face pack)-> যাদের ত্বক তেলতেলে বা অয়েলি, তাদের জন্য এই প্যাকটি ম্যাজিকের মতো কাজ করে। মুলতানি মাটি রোমকূপে জমে থাকা তেল-ময়লা পরিষ্কার করে, ত্বকের সেবাম নিঃসরণ নিয়ন্ত্রণ করে ব্রণর আক্রমণ কম করে। চন্দন জীবাণুনাশক হিসেবেও কাজ করে এবং ত্বক ঠান্ডাও রাখে। ব্রণর দাগ কমাতেও সাহায্য করে এই ফেস প্যাক। খুব বেশি ব্রণ হলে এর সাথে ৪/৫ টি নিমের পাতা বেটে মিশিয়ে নিতে পারেন।

কী কী লাগবে? (Ingredients)->

    • মুলতানি মাটি
    • চন্দন বাট
    • গোলাপ জল

 

কীভাবে বানাবেন প্যাক? (How will you make this pack?)

    • মুলতানি মাটি, চন্দন বাটা ও গোলাপ জল মিশিয়ে মসৃণ পেস্টের মতো করে নিন।
    • মুখে ও গলায় ভালো করে লাগিয়ে নিন।
    • ১৫/২০ মিনিট রেখে খুব ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।

 

কত বার লাগাবেন? (How often you should apply?)

একদিন ছাড়া ছাড়াই লাগাতে পারেন এই ফেস প্যাকটি।

 

#6. মুসুরির ডাল ও ওটসের উপটান (Red lentil and oats ubtan)-> কম সময়ে ত্বককে সজীব করে তুলতে এই উপটানটি দারুণ কাজ করে। মুসুরির ডাল, ওটস, চাল গুঁড়ো ত্বককে ভিতর থেকে পরিষ্কার করে, মরা কোষ দূর করে। আবার হলুদ ত্বক থেকে দাগ দূর করে এবং জীবাণুনাশক হিসেবেও কাজ করে। আমন্ড ত্বককে নরম করে ও এর আর্দ্রতা বজায় রাখে।

কী কী লাগবে? (Ingredients)->

    • মুসুরির ডাল
    • দুধ
    • ওটস গুঁড়ো, মিহি নয় কিন্তু
    • চাল গুঁড়ো
    • ৮-৯ আমন্ড
    • হলুদ গুঁড়ো
    • গোলাপ জল

 

কীভাবে বানাবেন প্যাক? (How will you make this pack?)

    • মুসুরির ডাল ও আমন্ডগুলো আগের দিন রাতে দুধের মধ্যে ভিজিয়ে রেখে দিন।
    • প্যাক বানানোর সময় ওই ভেজানো ডাল ও আমন্ড ব্লেন্ডারে ভালো করে মিক্স করে নিন।
    • এবার ওই মিশ্রণে চাল গুঁড়ো এবং ওটস গুঁড়োর সাথে এক-দু চিমটি হলুদ গুঁড়ো দিন। মিশ্রণটি পেস্টের মতো বানাতে যতটা গোলাপ জল প্রয়োজন সেটা মিশিয়ে নিন।
    • এই মিশ্রণ শুধু মুখে আর গলায় নয়, লাগাতে পারেন পুরো গায়েই।
    • ১৫/২০ মিনিট রেখে জল ভেজা হাতে হাল্কা করে স্ক্রাব করে করে তুলে ফেলুন।
    • ভালো করে জল দিয়ে ধুয়ে নিন।

 

কত বার লাগাবেন? (How often you should apply?)

সপ্তাহে একবার লাগালেই যথেষ্ট।

 

#7. কমলালেবুর খোসার ফেস প্যাক (Orange peel powder face pack)-> এই প্যাক সব ধরনের ত্বকের জন্যই কার্যকরী। কমলালেবুর খোসায় উচ্চ মাত্রায় সাইট্রিক অ্যাসিড ও ভিটামিন সি থাকে, যা নিয়মিত ব্যবহারে ত্বক দাগমুক্ত হয় এবং ত্বকের রং উজ্জ্বল হয়।

কী কী লাগবে? (Ingredients)->

    • কয়েকটি কমলালেবুর খোসা শুকিয়ে ব্লেন্ডারে গুঁড়ো করে নেওয়া।
    • গোলাপ জল।

 

কীভাবে বানাবেন প্যাক? (How will you make this pack?)

    • কমলালেবুর খোসার গুঁড়ো ও পরিমাণ মতো গোলাপ জল মিশিয়ে একটি পাতলা পেস্ট বানান।
    • মুখে ও গলায় লাগিয়ে নিন।
    • ১৫ মিনিট রেখে ধুয়ে ফেলুন।

 

কত বার লাগাবেন? (How often you should apply?)

একদিন ছাড়া ছাড়া এই প্যাক লাগাতে পারেন।

 

উজ্জ্বল ত্বকের টিপস (Home Remedies for Glowing Skin in Bengali)

কিছু বিশেষ তথ্য:

  • সবসময় মুখ পরিষ্কার করে তার পরেই যে কোনও ফেস প্যাক লাগাবেন। বাইরে থেকে এসে মুখ না ধুয়ে বা তেলতেলে মুখে প্যাক লাগালে কোনও কাজ হবে না।
  • প্যাক তুলবেন ঠান্ডা জল দিয়ে এবং অবশ্যই এর পরে ময়েশ্চারাইজার লাগাবেন।
  • সবার ত্বক সমান হয় না, কারও ত্বক শুকনো আবার কারও তেলতেলে। ত্বকের ধরন অনুযায়ী আপনি ফেস প্যাকের উপকরণ এদিক ওদিক করতেই পারেন।
  • কোনও প্যাক লাগিয়ে যদি ত্বকে র‍্যাশ, ব্রণ বা চুলকানি হয়, তা হলে সেটা আপনার স্যুট করছে না।
  • একই সঙ্গে দু-তিন রকম ফেস প্যাক ব্যবহার করবেন না। যে কোনও একটা অন্তত ১৫ দিন ব্যবহার করুন তারপরে না হয় বদলে ফেলবেন।
  • ঘরোয়া পদ্ধতিতে কোনও কিছুর চিকিৎসা সময়সাপেক্ষ হলেও তার ফল কিন্তু অনবদ্য। তাই ধৈর্য হারাবেন না।
  • ত্বক ভালো রাখতে শুধু ফেস প্যাক লাগালেই হবে না।পর্যাপ্ত ঘুম প্রয়োজন এবং দিনে ৩/৪ লিটার জল খেতে হবে। ভাজাভুজি খাবার একটু এড়িয়ে চলুন।
  • নিয়মিত মুখ পরিষ্কার করুন, টোনার হিসেবে গোলাপজল ব্যবহার করুন ও ত্বকের ধরন অনুযায়ী ময়েশ্চারাইজার লাগান। কথা দিচ্ছি, আপনার চাঁদের মতো চকচকে মুখে কোনও দাগ থাকবে না।

 

আরও পড়ুন: ব্রণর বাড়াবাড়ি? হবু-মায়ের সৌন্দর্য ফেরাবে ঘরোয়া টোটকাই!

 

একজন মা হয়ে অন্য মায়েদের সঙ্গে নিজের অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিতে চান? মায়েদের কমিউনিটির একজন অংশীদার  হয়ে যান। এখানে ক্লিক করুন, আমরা আপনার সঙ্গে যোগাযোগ করব।

null

null